বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০, ০৭:৩৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
উড়তে যাচ্ছে বিশ্বের বৃহত্তম ইলেকট্রিক বিমান ইন্ডিগোর ২ বিমানে ৫ যাত্রী করোনা পজিটিভ ! আতঙ্ক বিমান যাত্রায় যুক্তরাষ্ট্রে ১২ হাজার কর্মী ছাঁটাই করেছে বোয়িং দক্ষিণ কোরিয়ায় আরও ৫ বাংলাদেশি করোনা আক্রান্ত ইউএস-বাংলার ফ্লাইট চলাচল শুরু ১ জুন থেকে পরিবারের ৪ সদস্যকে আনতে ১৮০ আসনের উড়োজাহাজ ভাড়া! অভ্যন্তরীণ রুটে টিকিট বিক্রির ঘোষণা দিয়েছে বিমান, ইউএস-বাংলা ও নভোএয়ার ঢাকা কাস্টমস হাউজের ৩ রাজস্ব কর্মকর্তা করোনা আক্রান্ত ১৫ জুন পর্যন্ত আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট চলাচলের নিষেধাজ্ঞা বাড়িয়েছে বেবিচক অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চলাচলের ক্ষেত্রে বেবিচকের যে নির্দেশনা মানতে হবে

বিমানের বিশেষ ফ্লাইটে মালদ্বীপ থেকে ফিরেছে ৩৫৩ বাংলাদেশি, নিয়েছে মেডিক্যাল সরঞ্জাম

এভিয়েশন বার্তা ডেস্ক রিপোর্ট:
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৭ মে, ২০২০
  • ১৩৫ বার

মালদ্বীপে আটকে পড়া ৩৫৩ বাংলাদেশি নাগরিককে নিয়ে শনিবার (১৬ মে) রাতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিশেষ চার্টার্ড ফ্লাইট বিজি৪০৩৯ দেশে ফিরেছেন। শনিবার রাত ১০ টায় বিমানের এই বিশেষ ফ্লাইটটি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতারন করেন। বিমানবন্দরের বিশ্বস্ত সুত্র তা নিশ্চিত করেছে।

ফ্লাইটটি মালদ্বীপ যাওয়ার পথে মেডিক্যাল সরঞ্জাম এর একটি চালান ( শিপমেন্ট) মালদ্বীপে নিয়ে গেছে। মালদ্বীপে করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য গড়ে তোলা হচ্ছে একটি অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধার হাসপাতাল ‘কোভিড ভিলেজ’। এই চিকিৎসা কেন্দ্রের নির্মাণে সহায়তায় হাত বাড়িয়েছে বাংলাদেশ। নির্মাণাধীন হাসপাতালের মেডিক্যাল সরঞ্জামই বিমানের বিশেষ ফ্লাইটে মালদ্বীপ পৌঁছিয়ে দিয়েছে। চীন থেকে মেডিকেল সরঞ্জামের চালান পরিবহনে সহায়তা দিয়ে বিমান বাংলাদেশ।

ফিরতি ফ্লাইটে মালদ্বীপ থেকে স্বেচ্ছায় দেশে ফিরতে নিবন্ধিত অবৈধ প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেশে নিয়ে আসা হয়েছে। বিকাল ৫.০০ টায় মালদ্বীপের ভেলেনা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে থেকে ৩৫৩ জন বাংলাদেশিকে নিয়ে বিমানের বিশেষ ফ্লাইটে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়ে রাত ১০ টায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেছে।

মালদ্বীপের সূত্রে জানা গেছে, হুলহুমালে দ্বীপের ট্রি টপ হাসপাতালের সামনেই গড়ে উঠছে এই কোভিড ভিলেজ। দেশটিতে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় অনেক রোগির উন্নত চিকিৎসার কথা মাথায় রেখে গড়ে উঠছে এই ভিলেজ। এতে থাকবে ৩০০ ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট শয্যাসহ করোনা রোগীদের জন্য সব ধরনের চিকিৎসার সুযোগ সুবিধা।

মালদ্বীপের ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি অপারেশনস সেন্টারের তত্ত্বাবধানে গড়ে তোলা হচ্ছে এই ভিলেজ। এটি নির্মাণে ব্যয় করা হচ্ছে ৪০ মিলিয়ন মালদ্বীপ রুপিয়া। যার মধ্যে ১২ মিলিয়ন রুপিয়া খরচ হচ্ছে অবকাঠামো ব্যয়ে আর ২৮ মিলিয়ন খরচ হচ্ছে চিকিৎসা সরঞ্জাম এবং নানা ধরনের সরবরাহ ব্যয়ে।

এই প্রকল্পটি এপ্রিলে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও নির্মাণের জড়িত অনেকের করোনা পজেটিভ আসায় পিছিয়ে যায় নির্মাণ কাজ। বর্তমানে এটি মে মাসের মধ্যে শেষ করার পরিকল্পনা করেছে মালদ্বীপ সরকার। হাসপাতালের মেডিক্যাল সামগ্রীর চালান পরিবহনে সহযোগিতা করায় বিমান বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানিয়েছে মালদ্বিভিয়ান এয়ারলাইন্স।

রবিবার বিমান বাহিনীর বিশেষ ফ্লাইটে আরো ৭৭ জন বাংলাদেশি নাগরিক মালদ্বীপ থেকে দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
★ এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া  অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By BanglaHost
error: Content is protected !!