বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০, ০৯:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
উড়তে যাচ্ছে বিশ্বের বৃহত্তম ইলেকট্রিক বিমান ইন্ডিগোর ২ বিমানে ৫ যাত্রী করোনা পজিটিভ ! আতঙ্ক বিমান যাত্রায় যুক্তরাষ্ট্রে ১২ হাজার কর্মী ছাঁটাই করেছে বোয়িং দক্ষিণ কোরিয়ায় আরও ৫ বাংলাদেশি করোনা আক্রান্ত ইউএস-বাংলার ফ্লাইট চলাচল শুরু ১ জুন থেকে পরিবারের ৪ সদস্যকে আনতে ১৮০ আসনের উড়োজাহাজ ভাড়া! অভ্যন্তরীণ রুটে টিকিট বিক্রির ঘোষণা দিয়েছে বিমান, ইউএস-বাংলা ও নভোএয়ার ঢাকা কাস্টমস হাউজের ৩ রাজস্ব কর্মকর্তা করোনা আক্রান্ত ১৫ জুন পর্যন্ত আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট চলাচলের নিষেধাজ্ঞা বাড়িয়েছে বেবিচক অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চলাচলের ক্ষেত্রে বেবিচকের যে নির্দেশনা মানতে হবে

করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের সর্বস্ব দান করে বিমান ভাড়া ঋণ করে দেশে ফিরলেন অস্ট্রেলিয়ান দম্পতি

এভিয়েশন বার্তা ডেস্ক রিপোর্ট:
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২৩ মে, ২০২০
  • ৯৪ বার

বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক আরফান উদ্দিন কভিড-১৯ এ ক্ষতিগ্রস্তদের সর্বস্ব বিলিয়ে ঋণ করে দেশে ফিরলেন। তার অর্জিত সর্বস্ব অর্থ দান করে গেলেন দেশে অসহায় ও নিম্ন আয়ের মানুষে মাঝে।

জানা যায়, অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক আরফান উদ্দিন সপরিবারে গত ৪ ফেব্রুয়ারি অস্ট্রেলিয়া হতে বাংলাদেশের ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশাল উপজেলার দরিরামপুরে তার গ্রামের বাড়িতে আসেন। দেশে আসার কিছু দিন অতিবাহিত না হতেই শুরু হয় প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস (কভিড-১৯)-এর প্রাদুর্ভাব। এরই মাঝে সরকারি নির্দেশনায় অবরুদ্ধ করা হয় দেশের প্রতিটি অঞ্চল। কর্মহীন হয়ে পরে এ দেশের অধিকাংশ মানুষ। মানবিক দিক বিবেচনা করে অসহায় ও দুঃস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে শুরু করেন নিজের ব্যক্তিগত উদ্যোগে এ অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক আরফান উদ্দিন ও তার স্ত্রী সাবিয়া এরফান। তার অর্জিত ১৩ লাখ টাকার ত্রাণ সহায়তা প্রদান করেন ত্রিশাল, হালয়াঘাট ও ধোবাউড়া উপজেলায় কর্মহীন, অসহায় ও নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে। এতে তার ব্যাংক হিসাব শূন্যে চলে আসে। যা এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক আরফান উদ্দিন।

আরফান উদ্দিন অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক হওয়ায় অস্ট্রেলিয়া সরকারের ডাকে ও জীবিকার তাগিদে স্ত্রী সাবিয়া এরফান ও দুই শিশু সন্তান তিন বছর বয়সি আবিয়া আরফান ও দেড় বছর বয়সি আইবা আরফানকে রেখে আবার গত ২৭ এপ্রিল ফেরৎ চলে যেতে হয় অস্ট্রেলিয়ায়।

তিনি চলে গেলেও থেমে থাকে নি তার মানবিক কর্মকাণ্ড অসহায়দের মাঝে ত্রাণ সহায়তা প্রদান কার্যক্রম। সহায়তা প্রদান কার্যক্রম চালিয়ে এ দেশের মানুষের পাশে দাঁড়ান তার স্ত্রী সাবিয়া এরফান। স্ত্রী সন্তান অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক হওয়ায় তাদেরও দেশে ফিরে যাওয়ার নির্দেশনা দেন অস্ট্রেলিয়ান সরকার।

তখন ব্যাংকে একাউন্ট শূন্য হওয়ায় বিমান ভাড়ার টাকা না থাকায় বিপাকে পড়েন আরফান উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া এরফান। কোনো উপায়ান্ত না পেয়ে অস্ট্রেলিয়া পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহযোগীতায় ও বাংলাদেশে অবস্থিত অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনের মাধ্যমে অস্ট্রেলিয়ায় (৭ হাজার ২০০ ডলার) ঋণের আবেদন করেন। যা বাংলাদেশি টাকায় ৪ লাখ ৩২ হাজার। আবেদনের প্রেক্ষিতে আরফান দম্পতি অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক হওয়ায় ঋণ প্রদান করেন দেশটির সরকার।
আরফান উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া এরফান ও দুই সন্তান আইবা আরফান ও আবিয়া আরফানকে নিয়ে একটি বিশেষ বিমানে করে গত ৯ মে ফেরৎ চলে যান অস্ট্রেলিয়ায়। এ অবস্থায় গুনতে হয় বিমানের অতিরিক্ত ভাড়া। যা অন্যান্য সময়ের তুলনায় ৫ গুণ বেশি। দুই বছরের নিচের শিশু হলে বিমানের ভাড়া নেওয়ার নিয়ম না থাকলেও বিশেষ বিমান হওয়ায় ৩টি টিকিটই খরিদ করতে হয় ৫ গুণ বেশি টাকা দিয়ে। যার প্রতিটি টিকিটের মূল্য বাংলাদেশি টাকায় ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা করে।

আরফান উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া এরফান ও দুই সন্তান আইবা আরফান ও আবিয়া আরফান অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার পর দেশটির সরকারি ব্যবস্থাপনায় রাখা হয় হোম কোয়ারেন্টিনে। তাদের করোনা ভাইরাস (কভিড-১৯) এর কোনো উপসর্গ না থাকলেও দেশটির নিয়ম অনুযায়ী থাকতে হচ্ছে এ ব্যবস্থাপনায়।

এ বিষয়ে ত্রিশাল, ধোবাউড়া ও হলুয়াঘাট উপজেলায় জানাজানি হলে প্রশংসায় ভাসছেন এ দম্পতি। তাদের এহান উদারতায় মুগ্ধ এসব উপজেলার সকল স্তরের লোকেরা। তাদের এ কর্মকাণ্ডকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন অনেক গুণিজন।

গত বছর অস্ট্রেলিয়ান লেবার পার্টির অন্যতম গণনেতা টনিবার্কের সঙ্গে আরফান ফ্যামেলী’স স্মাইলিং বেবি ফাউন্ডেশন কর্ণধার আরফান উদ্দিনের সৌজন্য সাক্ষাৎকালে ফাউন্ডেশনের কর্মকাণ্ড পর্যালোচনা করে প্রশংসা করেন এবং সেই সঙ্গে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভূয়সী প্রশংসা করেন।

আরফান উদ্দিনের সঙ্গে এ বিষয়ে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কথা বললে তিনি বলেন, শুধু নগর বা মফস্বল কেন্দ্রিক নয়, সীমিত সবটুকু সামর্থ্য দিয়ে আমরা চেষ্টা করছি প্রত্যন্ত ও দূর্গম এলাকাতেও জরুরি খাবার নিয়ে পৌঁছে দিতে। কিছু পাওয়ার আনন্দে এসব মানুষের নিখাদ ভালোবাসা সত্যি আবেগময়। ধন্যবাদ সাবিয়া এরফানকে, তাঁর ক্লান্তিহীন সাপোর্টের জন্য।

এছাড়াও পথশিশুদের সাহায্যার্থে আরফান উদ্দিন ব্যক্তিগত উদ্যোগে গড়ে তোলেন আরফান ফ্যামেলী’স স্মাইলিং বেবি ফাউন্ডেশন। যেখানে সমাজের অবহেলিত, এতিম ও ঠিকানাবিহীন পথশিশুদের পাশে দাঁড়ায় প্রতিষ্ঠানটি।

ময়মনসিংহ ত্রিশালে পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ড দরিরামপুর গ্রামের বালিপাড়া রোড সংলগ্নে অবস্থিত আরফান ফ্যামেলী’স স্মাইলিং বেবি ফাউন্ডেশন ২০১৫ সালে আরফান উদ্দিনের নিজস্ব অর্থায়নে এক বিগা জমির ওপর ১১০ জন পথশিশু নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম শুরু হয়ে অদ্যাবধি অব্যাহত রয়েছে।
এর ধারাবাহিকতায় গত ১১ মার্চ একটি সম্পূর্ণ অলাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে পিকআপ ভ্যানের মাধ্যমে ভ্রাম্যমাণ মিনি রেস্টুরেন্ট (এসবিএফ ফুড ভ্যান) এর উদ্বোধন করেন প্রতিষ্ঠানটি।

ভ্রাম্যমাণ মিনি রেস্টুরেন্টের লাভের শতভাগ অর্থই ব্যয় করা হয় সমাজের অবহেলিত, এতিম ও ঠিকানাবিহীন পথশিশুদের জীবন মান উন্নয়নের লক্ষ্যে। পথশিশুরা যাতে উন্নত ভবিষ্যৎ সৃষ্টি করতে পারে এ প্রতিষ্ঠানটি তাদের খাদ্য, শিক্ষা ও চিকিৎসার জন্য যোগান দিয়ে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত।

কালের কন্ঠ

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
★ এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া  অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By BanglaHost
error: Content is protected !!